৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | হেমন্তকাল | ১৪ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

চার জেলায় পশুর হাট না বসানোর নির্দেশনা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের

Ads

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্রগ্রামে কোরবানির পশুর হাট স্থাপন না করার নির্দেশনা দিয়ে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এসব জেলায় ডিজিটাল পদ্ধতিতে পশুর হাট বসানোর ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও বলা হয়েছে চিঠিতে।

কভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটির ফোকাল পয়েন্ট এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব শামীমা নাসরীন স্বাক্ষরিত চিঠিটি বুধবার (১৫ জুলাই) স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিবের কাছে পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদানের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়।

চিঠিতে বলা হয়েছে, কভিড-১৯ জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির ১৪ তম সভার সুপারিশে অবহিত করা হয় যে, কভিড-১৯ সংক্রমণ এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি এবং এ অবস্থায় ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় অবাধ জীবন যাত্রা উদ্বেগজনক। ঈদ-উল আজহাতে পশুর হাট স্থাপন করার ক্ষেত্রে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি সুপারিশ করে যে, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্রগ্রামে যেন পশুর হাট স্থাপন না করা হয়। এ ক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতিতে পশু কেনাবেচারও পরামর্শ প্রদান করা হয়। অন্যান্য জেলায়ও পশুর হাট স্থাপনে স্বাস্থ্য বিধি প্রতিপালনের পরামর্শ দেয়া হয় চিঠিতে।

পশুর হাট ও কোরবানি করতে যেসব স্বাস্থ্য বিধি প্রতিপালনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে সেসবের মধ্যে রয়েছে -কোরবানির পশুর হাট শহরের অভ্যন্তরে স্থাপন না করা। পশুর হাট খোলা ময়দানে বসানোর ব্যবস্থা করা, যেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং সংক্রমণ প্রতিরোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব।

বয়স্ক এবং অসুস্থ ব্যক্তিদের হাটে যাওয়া থেকে বিরত রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ করা। হাটে প্রবেশ ও বেড়োবার পৃথক ব্যবস্থা করা, হাটে যাওয়া সবার মাস্ক পরিধান করা বাধ্যতামূলক করা। বাড়িতে কোরবানি না করে সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত স্থানে ব্যবস্থা করা, অনলাইনে অর্ডারের মাধ্যমে বাড়ির বাইরে কোরবানি দেয়া সম্ভব হলে তা জন্য উৎসাহি করা।

Ads
You might also like
Loading...